হরিপুরে  অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত একই পরিবারের তিনশিশুকে হুইল চেয়ার প্রদান করলেন উপজেলা প্রসাশন  - Simanto Times
Latest:
simantotimes24

Today: 26 Sep 2021 - 04:59:10 am

হরিপুরে  অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত একই পরিবারের তিনশিশুকে হুইল চেয়ার প্রদান করলেন উপজেলা প্রসাশন 

Published on Tuesday, July 27, 2021 at 12:11 pm 85 Views
হরিপুরে  অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত একই পরিবারের তিনশিশুকে হুইল চেয়ার প্রদান করলেন উপজেলা প্রসাশন 
গোলাম রব্বানী, হরিপুর (ঠাকুরগাঁও) : ঠাকুরগাঁও জেলায় হরিপুর উপজেলার ৩নং বকুয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৭নং ওয়ার্ডের বলিহন্ড গ্রাম । শ্রী বাদুল রায় পার্শ্ববর্তী গ্রামে কাজলী রানীর সাথে বিয়ে হয়, আনন্দ উল্লাসে ভালোই কাটছিল দিন, বাদুল রায় এর  কোল জুড়ে এলো ফুট ফুটে সন্তান, কাজলী রানী আদর করে নাম রেখেছিল রমাকান্ত। দিনে দিনে বড় হতে থাকে এবং বাবা স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম শ্রেনীতে ভর্তি করে দেয়। বাদুল রায় অভাবের কারণেই প্রতিদিনই পরের বাড়িতে কামলা দিত। রমাকান্ত দ্বিতীয় শ্রেণির উঠলে মা বাবা কে সে মাঝে মাঝে তার অসুস্থতার কথা জানাইত । প্রথমে স্থানীয় ডাক্তার ও পরে ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে এবং পরিশেষে রংপুর মেডিক্যাল হাসপাতালে চিকিৎসা করান। ইতিমধ্যে জয়েন্ত (১২)ও হরিদ্র(৮) জন্ম নেয়। বাদুল রায় দ্বিতীয় ও তৃতীয় ছেলেরও একই উপসর্গ দেখা দিলে দিশেহারা হয়ে যায়। তিন সন্তানের চিকিৎসা করানোর জন্য মোটা অংকের টাকার প্রয়োজন। আর্থিক অবস্থা নাজুক। অর্থের অভাবে দীর্ঘদিন দিন থেকে সন্তানদের চিকিৎসা বন্ধ , তিন সন্তান নিয়ে কার কাছে যাবে কোথায় যাবে? এদিকে চলছে লকডাউন। অবুঝ শিশু গুলো কি চিকিৎসার অভাবে কি মারা যাবে? বাদুল রায় এর করুন আর্তনাদ স্ব হৃদয়বান মানুষের কর্নকুহরে কি পৌঁছাবে ? নিরুপায় হয়ে সৃষ্টি কর্তার দিকে চেয়ে থাকে। বাদুল রায় এর নিদারুণ কষ্টের কথা গুলো স্থানীয় সাংবাদিকের  নিকট শেয়ার করলে তারা সামাজিক গণমাধ্যম, সমাজের বিত্তবান শ্রেণীর ও প্রধানমন্ত্রী দৃষ্টি আকর্ষণ করে গণমাধ্যমে ছড়িয়ে দেন।। সামাজিক গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাদুল রায় কে একটি হুইল চেয়ার প্রদান করেন মোঃ মনিরুল হক খান, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মকর্তা হরিপুর, ঠাকুরগাঁও। আরও আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ মোঃ আসাদুজ্জামান বাদুলের বাড়িতে উপস্থিত হন। ডাঃ আসাদুজ্জামান বলেন, শিশু তিনটি বিরল রোগে আক্রান্ত, এই রোগের নাম হচ্ছে Duchenne Muscular Dystrophy । এই রোগের তেমন কোন চিকিৎসা নেই। দুইটি শিশু বেশি আক্রান্ত আর একটি কম তবে যেটা কম সেটাকে আপাতত চিকিৎসা দিতে হবে। আর যেন বেশি আক্রান্ত না হয়।। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্মকর্তা মোঃ মনিরুল হক খান, পরিবার টিকে আর্থিক অনুদানের জন্য সমাজ সেবা অধিদপ্তরের আবেদন করার পরামর্শ দেন, সব ধরনের সহযোগিতা করার আশ্বাস প্রদান করেন এবং সমাজের বিত্তবান ও স্ব হৃদয় ব্যক্তিদেরকে পরিবারটির পাশে থাকার আহবান জানান। এসময় উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন শ্রেণির পেশাজীবি মানুষ ,ইলেকট্রনিক ও প্রির্ন্ট মিডিয়ার সাংবাদিক গণ।
Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *