ডোমার ভোগ্যপণ্য ও ডিমলা স্বপ্ন সমবায় সমিতির সভাপতিদ্বয়ের বিরুদ্ধে এক কোটি টাকার চেক ডিসঅনার - Simanto Times
Latest:

Today: 23 Jun 2021 - 02:05:42 am

ডোমার ভোগ্যপণ্য ও ডিমলা স্বপ্ন সমবায় সমিতির সভাপতিদ্বয়ের বিরুদ্ধে এক কোটি টাকার চেক ডিসঅনার

Published on Thursday, April 29, 2021 at 5:47 am 214 Views

আল-আমিন রহমান, বিশেষ প্রতিনিধি : অবশেষে অনেক জল্পনা কল্পনা শেষে ভুক্তভোগী নারীদের কাছে ডোমার উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা ৫০ লাখ করে দুইটি চেক, নগদ ৬ লাখ টাকা ও ননজুডিশিয়াল স্ট্যাম্প হস্তান্তর করেন । নীলফামারীর ডোমারে ৬ শাতধিক নারীকে সম্পৃক্ত করে ৬ কোটি টাকার অধিক প্রতারণার ঘটনায় প্রতারক চক্র দলের দুই সদস্য ডোমার ভোগ্যপণ্য সমবায় সমিতি লিঃ এর সভাপতি মামুন হাচান মালিক ও ডিমলা স্বপ্ন সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতির সভাপতি মাহমুদুল হাসান মামুন বিগত ১২ ডিসেম্বর/২০ ডেমার থানায় নগদ ৬ লক্ষ টাকা ৫০ লক্ষ করে এক কোটি টাকার দুইটি চেক এবং নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে মুচলেকা প্রদান করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ডোমার, সহকারী কমিশনার (ভূমি) ডোমার, অফিসার ইনচার্জ ডোমার থানা, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীবৃন্দসহ শত শত ভুক্তভোগী প্রতারিত নারী। প্রতারক চক্রের সদস্যদ্বয় মুচলেকায় ৭ দিনের মধ্যে চেকে প্রদানকৃত টাকা পরিশোধ করার প্রতিশ্রতি দেয়ায় তাদেরকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ঘটনার পর থেকে প্রতারক মামুন হাসান মালিক @ আদম সুফি (৪৫) পিতা-মোঃ মজিবর রহমান, সাং-মধ্য চিকনমাটি,পৌরসভা- ডোমার, জেলা-নীলফামারী, মাহমুদুল হাসান মামুন @ মামুন রহমান (২৮), পিতা-আবুল কাশেম কালু, সাং-দক্ষিণ তিতপাড়া (মেডিকেল মোড়), উপজেলা- ডিমলা, জেলা-নীলফামার,ফজলুর কাজী কাদের শাকিল ওরফে নুর আলম (৩৮), পিতা-মৃত জিল্লুর রহমান জিকু, সাং-কাহালু গুনিয়ারপাড়া, উপজেলা-কাহালু, জেলা-বগুড়া এবং মোঃ মাহবুব আলম (৪৭), পিতা- অহিদুল ইসলাম, সাং-বুঝুরক্ষর হাট (পাজো পাড়া), উপজেলা-বাঘমারা, জেলা-রাজশাহী গাঁ ঢাকা দেন। অনেক চেষ্টা করেও প্রতারিত শত শত নারী খোঁয়া যাওয়া টাকা উদ্ধার করতে না পেরে ঘটনার ৪২ দিন পর ২৪ জানুয়ারী/২১ ভুক্তভোগী নারীদের পক্ষে প্রতারিত ২৬৭ জন নারীর নাম উল্লেখ করে ০১ কোটি ৪১ লক্ষ টাকা আদায়ের নিমিত্তে প্রতারকদের বিরুদ্ধে ৪০৬/৪২০ ধারায় ডোমার থানায় মামলা দায়ের করেন। যার নং-০৪। এ ঘটনায় প্রতারক চক্রের সদস্য আসামীরা পলাতক থাকায় পুলিশ কাউকেই গ্রেফতার করতে পারেননি। পরবর্তীতে রংপুর র‌্যাব-১৩ ঢাকা থেকে মামলার প্রধান আসামী মামুন হাসান মালিক @ আদম সুফিকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হন। গ্রেফতারের পর থেকে মামলার প্রধান আসামী জেল হাজতে থাকলেও অন্যান্য আসামদের এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি আইনশৃখংলা বাহিনী। এদিকে ঘটনার প্রায় ৫ মাস অতিবাহিত হলেও ডোমার উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা মোঃ নুরুজ্জামান খাঁন এর কাছে জমাকৃত ৬ লাখ টাকা এবং এক কোটি টাকার চেক দুইটির কোন সুরাহ করেননি তিনি। ভুক্তভোগী প্রতারিত নারীরা জমা থাকা উক্ত টাকা এবং চেক হস্তান্তরের জন্য  প্রতিনিয়ত সমবায় কর্মকর্তার কার্যালয়ে ধর্ণা দেয়া অব্যাহত রাখায় প্রতারিত নারীদের হাতে উক্ত চেক ও টাকা হস্তান্তরের সিন্ধান্ত গ্রহণ করেন উপজেলা প্রশাসন। সিন্ধান্ত মোতাবেক গত ১৫ এপ্রিল/২১ তারিখে চেক দুই খানা, নগদ ৬ লাখ টাকা এবং মুচলেকার নন জুডিশিয়াল স্টাম্প পেপারগুলি হস্তান্তর করা হয় ভুক্তভোগী নারীদের প্রতিনিধি শিরিনা আক্তার, উম্মে হাবিবা ও রাফিয়া সুলতানার কাছে। চেক দুইটি উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা মোঃ নুরুজ্জামান খাঁন এর বরাবরে প্রদানকৃত হওয়ায় উক্ত কর্মকর্তা গত ১৮ এপ্রিল/২১ তারিখে চেক নং-গছ/১০-০৮২৭০০৭ হিসাব নং-৫৩০৫৮৩৪০৪৯৭৫৬ এর মাধ্যমে ৫০ লক্ষ টাকা উত্তোলনে সোনালী ব্যাংক, ডোমার শাখায় প্রদান করিলে হিসাবটি বন্ধ, অপর্যাপ্ত তহবিল এবং স্বাক্ষরের মিল না থাকায় ব্যাংক ব্যবস্থাপক একটি ডিসঅনার স্লিপ প্রদান করেন। অপরদিকে ডিমলা স্বপ্ন সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি লিঃ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহমুদুল হাসান মামুন এবং পরিচালক আরজু হোমায়আরা তনুর নামীয় সীল মোহরকৃত যৌথ স্বাক্ষরিত চেক নং-সিভিডি-১৭৪৩৭১৫ হিসাব নং- ৪৩৪১০২০০০২০৫৯ চেকটি রুপালী ব্যাংক, ডিমলা শাখায় ৫০ লক্ষ টাকা উত্তোলনের জন্য প্রদান করিলে অপর্যাপ্ত তহবিল থাকায় ব্যাংক ব্যবস্থাপক একটি ডিসঅনার স্লিপ প্রদান করেন।
প্রসঙ্গত, উক্ত প্রতারকদের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ সংশোধিত/০৩ এর ৭/৯(১)/৩০ ধারায় একটি নারী ও শিশু অপহরণ মামলা দায়ের করা হয়েছে। অপরদিকে দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও অপহরণকৃত নারী ও শিশু উদ্ধার না হওয়ায় বাদী উক্ত নারী ও শিশুকে পাঁচার করতে পারে আশংকায় অপহরণকৃত মামলার অন্যতম আসামী মামহমুদুল হাসান মামুনকে প্রধান আসামীসহ ৬জনকে আসামী করে একটি মানবপাঁচার মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও মামলার বাদী জানিয়েছে। এদিকে ভোগ্যপণ্য সমবায় সমিতি লিঃ এর সভাপতি বাদী হয়ে আড়াই কোটি টাকা আত্মসাদের ঘটনা দেখিয়ে গত ২৪ জানুয়ারী/২১ ইং ডোমার আমলী অদালতে প্রতারক মাহমুদুল হাসান মামুনসহ ৪জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটি ডোমার থানায় এজাহার হিসাবে গণ্য করে নথিভুক্ত করা হয়েছে । শুধু তাই নয়, মাহমুদুল হাসান মামুন ডিমলায় সাড়ে ১৩ লাখ টাকা চাকুরী দেয়ার নামে প্রতারণা করে আত্মসাৎ করায় জেলা পুলিশ সুপারকে অভিযোগ দিয়েছে ভুক্তভোগী চাকুরী প্রত্যাশী এক যুবক। এবং বীরমুক্তিযোদ্ধা তার পরিবারকে লাঞ্চিত করার ঘটনায় রয়েছে প্রধান আসামী মাহমুদুল হাসান মামুন। রয়েছে তার বিরুদ্ধে একটি ধর্ষণ মামলা। একই ভাবে প্রতারক ফজলুর কাজী কাদের শাকিল ওরফে নুর আলম এবং মোঃ মাহবুব আলম এর বিরুদ্ধের রয়েছে প্রতারণারসহ নানা অপরাধের মামলা।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *