ডোমারে ৬ কোটি টাকা প্রতারণায় জড়িত ডিমলায় মামুনের সমবায় সমিতির আঁড়ালে চড়া সুদের ব্যাবসা - Simanto Times
Latest:
simantotimes24

Today: 25 Feb 2021 - 07:01:18 pm

ডোমারে ৬ কোটি টাকা প্রতারণায় জড়িত ডিমলায় মামুনের সমবায় সমিতির আঁড়ালে চড়া সুদের ব্যাবসা

Published on Wednesday, January 6, 2021 at 1:27 pm 333 Views

স্টাফ রিপোর্টার : নীলফামারীর ডোমারে ৬ কোটি টাকা প্রতারণায় জড়িত মামুনের স্বপ্ন সমবায় সমিতির আড়াঁলে এখন চড়া সুদের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে নির্বিঘ্নে। ডোমারের টাকা প্রতারণা ঘটনায় কাগজে কলমে জড়িত না থাকলেও প্রতারণার টাকা দিয়ে জেলার ডিমলা উপজেলায় স্বপ্ন সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি লিঃ এর আড়ালে ক্ষৃদ্র ঋনের নামে চালানো হচ্ছে চড়া সুদের ব্যবসা বলে খবর পাওয়া গেছে।
জানা যায়, মাহমুদুল হাসান মামুন যেভাবে ডিমলায় স্বপ্ন সমবায় সমিতির নিবন্ধন নিয়েছেন কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করে ঠিক তেমনি ভাবেই ডোমারেও ডোমার বাজার ভোগ্যপন্য সমবায় সমিতির নিবন্ধন নম্বর বের করে ফেলেন খুর অল্প দিনেই। সমিতির নিয়ম অনুযায়ী একটি সমিতির নির্বাহীর দায়িত্বে থাকলে তিনি আর অন্যকোন সমিতিতে নির্বাহী সদস্য পদে থাকতে পারবেন না। এ কারনেই মাহমুদুল হাসান মামুন ডোমারে ভোগ্যপন্য সমিতিতে সদস্য হতে পারেননি। তাই ডিমলার মামুনকে ডোমারে ভোগ্যপণ্য সমবায় সমিতির পরিচালক হিসাবে নিয়োজিত করেছে উক্ত সমিতির সভাপতি মামুন হাচান মালিক ওরফে আদম সুফি। ডিমলার মামুনকে পরিচালক বানিয়ে প্রতারণার কাজটি তারা সকলে মিলেই পরিকল্পনা মাফিক করেছেন বলেও ডোমারের প্রতারিত নারীরা জানিয়েছেন। ডোমারে ৬ কোটি টাকা প্রতারণার ঘটনায় প্রতারিত নারীরা আরো জানায়, প্রতারণার ঘটনাটি তারা পরিকল্পিত ভাবেই তাদের পরিকল্পনা মাফিক ঘটিয়েছে। এ কারনে আদম সূফি মালিক তার নিজস্ব জায়গা জমি ঘটনার আগেই বিক্রি করে ভারা বাড়ীতে বসবাস করতেন ডোমারে চিকনমাটিতে। ৬ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে আদম সুফি মালিকসহ তারা সকলেই চম্পট দিয়েছে। পরিকল্পিত ভাবেই মামুন হাসান মালিক ওরফে আদম সুফি (৪৫) পিতা-মোঃ মজিবর রহমান, সাং-মধ্য চিকনমাটি, পৌরসভা- ডোমার, জেলা-নীলফামারী, মাহমুদুল হাসান মামুন ওরফে মামুন রহমান (২৮), পিতা-আবুল কাশেম কালু, সাং-দক্ষিণ তিতপাড়া (মেডিকেল মোড়), উপজেলা- ডিমলা, জেলা-নীলফামার, ফজলুর কাজী কাদের শাকিল ওরফে নুর আলম (৩৮), পিতা-মৃত জিল্লুর রহমান জিকু, সাং-কাহালু গুনিয়ারপাড়া, উপজেলা-কাহালু, জেলা-বগুড়া এবং মোঃ মাহবুব আলম (৪৭), পিতা-অহিদুল ইসলাম, সাং-বুঝুরক্ষর হাট (পাজো পাড়া), উপজেলা-বাঘমারা, জেলা-রাজশাহী এই প্রতারক চক্রদলটি প্রতারণার ফাঁদ পেতেই তারা এই প্রতারণা করেছে বলেও দাবী ডেমারের ভুক্তভোগী প্রতারিত নারীদের। তারা আরো জানায়, মামুন হাচান মালিক ওরফে আদম সুফি ঔষধ কোম্পানীর প্রায় লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করেছে। ফলে তার বিরুদ্ধে কোর্টে মামলা চলমান। মাহমুদুল হাসান মামুন সরকারী চাকুরীর পাশাপাশি এভাবেই প্রতারণা করেন। সরকারী চাকুরী নিয়োগে বিভিন্ন চাকুরীর লিখিত পরীক্ষায় প্রক্সির মাধ্যমে পরীক্ষায় অংশগ্রহন করিয়ে পরীক্ষায় টিকিয়ে দেওয়ার কথা বলে প্রতারণার মাধ্যমে ডিমলায় লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে অনেকের কাছে। শাকিল ও মাহবুব প্রতারণা মামলাসহ প্রতারণায় তাদের একমাত্র কাজ বলেও জানা গেছে বিভিন্ন মাধ্যমে।
এদিকে ডোমারে প্রতারণার ঘটনায় জড়িত মাহমুদুল হাসান মামুনের নামে ডিমলায় স্বপ্ন সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি লিঃ এর আঁড়ালে মাইক্রোক্রেডি রেগুলেটরি অথরোটি এম.আর.এ’র অনুমতি বিহীন ক্ষুদ্র ঋণের নামে চড়া সুদের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। পঞ্চগড় পাউবো’র কার্য্য-সহকারী ওয়ার্ক এ্যাসিটেন্ট মাহমুদুল হাসান মামনু’র বিরুদ্ধে সরকারী দায়িত্ব অবহেলা গাফিলতি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সহযোগীতায় কর্মসন্থলে না থেকেও সরকারী ভাতা উত্তোলন একই সঙ্গে সরকারী নিবন্ধনকৃত লাভজনক সংস্থা স্বপ্ন সমবায় সমিতির সভাপতি ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্ব পালনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হলেও কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। জানা যায়, সরকারী চাকুরীজীবির বিধিমালা চুরান্ত ভঙ্গ করে সরকারী দায়িত্ব অবহেলা ও সমিতির দায়িত্বে থেকে কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়র বিরুদ্ধে বিগত ১০ মার্চ/২০২০ ইং তারিখে ৪ জনের স্বাক্ষরিত পঞ্চগড়ের প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী, জেলা সমবায় কর্মকর্তা, ডিমলা উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা বরাবরে অভিযোগ পত্র দাখিল করেন অভিযোগকারীরা। অভিযোগ পত্র সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড পাউবো’র পঞ্চগড় নির্বাহী প্রকৌশলীর কার্যালয়ের কার্য্য সহকারী মাহমুদুল হাসান মামুন ’র বিরুদ্ধে সরকারী কর্মস্থল ফাঁকি দিয়ে এক মাসের স্বাক্ষর এক দিনে করেই দিনের পর দিন মাসের পর মাস নিজ বাসভবন নীলফামারীর ডিমলায় অবস্থান করে পরিচালনা করে আসছেন স্বপ্ন সমবায় সমিতি।
নীলফামারী জেলা সমবায় অধিদপ্তর হতে নিবন্ধনকৃত স্বপ্ন সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি লিঃ, নিবন্ধন নং-২৯ তাং-২৫/০২/২০১৯ ইং এর কার্যনির্বাহী পর্ষদের সভাপতি এবং খুদ্র ঋণ ও সঞ্চয় প্রকল্পের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসাবে দায়িত্ব পালন করে চলেছেন এই পাউবো’র মামুন। উক্ত কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সমিতির সভাপতি মাহমুদুল হাসান মামুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে প্রায় দুই বছর ধরে ব্যাংক একাউন্ট (চলতি হিসাব নং-২০৫৯) রুপালী ব্যাংক, ডিমলা শাখা, নীলফামারী ও মামুনের স্ত্রী মোছাঃ আরজু হোমায়রা তনু’র যৌথ স্বাক্ষরে টাকা লেনদেন করে আসছেন দীর্ঘদিন ধরেই। দৈনিক মাইক্রোক্রেডিট কার্যক্রম চড়া সুদে শতকরা বছরে ৪০% সুদে ঋন কার্যক্রম পরিচালনা করছেন তারা। যা মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরি অথরোটি এমআরএ কর্তৃক অনুমোদন নাই। অথচ তারা সম্পুন্নরুপে বেইআনী ভাবে ক্ষুদ্রঋন অর্থ্যাৎ চড়া সুদে দৈনিক কিস্তি হারে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। খোঁজখবর নিয়ে জানা যায়, স্বপ্ন সমবায় সমিতি থেকে শতকরা ১০% সুদের হারে ১১০টি দৈনিক কিস্তিতে পরিশোধ করতে হয় সমিতির টাকা। পাশাপাশি শতকরা ১০ টাকা ঋণের বিপরীতে সঞ্চয়ও রাখতে হয় সমিতিতে। শুধু তাই নয়, ঋনের বিপরীতে ঋন বীমা, ঋণ ফরম ফি, এককালীন আমানত সংগ্রহ (এফডিআর), ঋণ প্রদানে সঞ্চয় গ্রহন ছাড়াও ডিপিএস এর নামে এককালীন আমানত সংগ্রহ করছেন সমিতিটি। জানা গেছে, ডোমারে ৬ কোটি টাকা প্রতারনার মাধ্যমে হাতিয়ে নেওয়া টাকাও এই সমিতিতে পুঁজি হিসেবে লাগিয়ে ব্যবসা করছে ডোমারে প্রতারণার সঙ্গে জড়িত মাহমুদুল হাসান মামুন। স্বপ্ন সমিতিটি সার্বিক গ্রাম উন্নয়নে নিবন্ধন দেওয়া হলেও মুলত: এটি একটি মাহমুদুল হাসান মামুনের ব্যক্তিগত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে উঠেছে। সমিতির নিয়ম অনুযায়ী সাধারণ সসদ্যদের ডেকে কখনও মিটিং করা হয়নি সমিতির কার্যক্রমে। স্বপ্ন সমবায় সমিতির ৬ জন নির্বাহী সদস্যে’র মধ্যে ৪ জনেই মামুনের পরিবারের। সভাপতি মামুন, নির্বাহী সদস্য তার মা মায়া বেগম, বাবা আবুল কাশেম কালু, স্ত্রী আরজু হোমায়রা তনু। এ যেন পরিবারের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। সমবায় সমিতির কোন বালাই নাই সেখানে। প্রতারণার অর্থ দিয়ে মাহমুদুল হাসান মামুন একক ভাবেই পরিচালনা করেন স্বপ্ন সমবায় সমিতিটি।
গেল বছর ০৮ মার্চ জেলা ও উপজেলা সমবায় কার্যালয়ে অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে ডিমলা উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা আলমগীর জামান মুঠোফোনে বলেন, আমি অভিযোগের তদন্ত করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে তদন্তের জন্য জেলায় চিঠি পাঠিয়ে দিয়েছি। জেলা থেকে তদন্ত করা হবে। জেলা থেকে এখনও আমার কাছে কোন চিঠি আসেনি। ডোমারে সহ¯্রাধিক নারীর প্রায় ৬ েেকাটি টাকা প্রতারণায় ঘটনায় ডোমার উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা নুরুজ্জামান খাঁন মুঠোফোনে জানান, উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে চেক উদ্ধার করা হয়েছে। ঐ চেকে টাকা পয়সা একদম নাই। আমরা চেক ডিসঅনার মামলা করবো। তার মধ্যে ডিমলার মামুন যে চেক প্রদান করেছে সেটি তার স্ত্রীসহ যৌথ একাউন্ট। কিন্তু ঐ একাউেেন্ট মাত্র ১৯’শ টাকা রয়েছে। ডোমার আদম সুফি ও ডিমলার মামুন ও তার স্ত্রীসহ এক কোটি টাকার চেক ও নগদ ৬ লাখ টাকা পাওয়া গেছে। তিনি আরো জানান, চেক ও টাকা উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশে থানায় জমা রাখা হয়েছে।
স্বপ্ন সমবায় সমিতির সভাপতি মামুনের বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিভাগীয় ভাবে বিগত ১৬ অক্টোবর’ ২০ ইং তারিখে বাপাউবো’র কর্মচারী পরিদপ্তর শাখা, ঢাকার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ সহকারী পরিচালক, গোলাম ফারুক ১ সদস্য বিশিষ্ট তদন্তকারী কর্মকর্তা হিসাবে মামুনের বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত করেন। এ ব্যাপারে তদন্তকারী কর্মকর্তা কর্মচারী পরিদপ্তর শাখা, সহকারী পরিচালক, গোলাম ফারুক এর মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমি কার্য সহকারী মাহমুদুল হাসান মামুনের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের তদন্ত করেছি তদন্ত রিপোর্ট দাখিল করা হবে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে। এ ছাড়াও তার বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ পানি উন্নয়ন বোর্ড প্রধান কার্যলয়ে এসেছে। তাই তার বেতন ভাতাদি আপাতত বন্ধ করা রাখা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *