ডোমারে বেতগাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মেরামত কাজের ব্যপক অনিয়ম - Simanto Times
Latest:
Default Ad Banner

Today: 26 Oct 2020 - 01:21:14 am

ডোমারে বেতগাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মেরামত কাজের ব্যপক অনিয়ম

Published on Saturday, September 12, 2020 at 12:05 pm 34 Views

ডোমারে বেতগাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মেরামত কাজের ব্যপক অনিয়ম

রবিউল হক রতন, ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি :
নীলফামারীর ডোমারে বেতগাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ক্ষুদ্র মেরামত কাজের ব্যপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে।
জানাযায়, চলতি অর্থ বছরে ডোমার উপজেলার ৫১ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ক্ষুদ্র মেরামতের জন্য ২লক্ষ টাকা করে বরাদ্দ দেয়া হয়। তাদের মধ্যে উপজেলার জোড়াবাড়ী ইউনিয়নের বেতগাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য ২লক্ষ টাকা বরাদ্দ হলে, বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মতিউর রহমান রুবেল ও প্রধান শিক্ষক গোলাম আজম রুবেল কোন রকম দায়সাড়া কাজ করে বীল উত্তোলন করে সরকারী টাকা নিজেরাই আতœসাত করেছে বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেন। গত সপ্তাহে বিদ্যালয়ের কাজ সম্পন্ন করেছে। নি¤œ মানের সামগ্রী ব্যবহার করায় কয়েক দিনের মধ্যে রং ও বার্নিশ নষ্ট হয়ে দেয়ালে শ্যাওলা পড়তে শুরু করেছে। অপরদিকে দেয়ালের নিচের অংশ খসে পড়ে জরাজিন্ন অবস্থা তৈরী হয়েছে। দেয়াল ও দরজা জানালা নতুন করে রং করার পরেও তা ভাল মতো পরিস্কার না করে রং করায় পূর্বের সব ভেষে উঠতে দেখা গেছে। এলাকাবাসী আরিফ রহমান জানান, সরকার ২লক্ষ টাকা রং বার্নিশ ও ভাঙাচুরা মেরামতের জন্য প্রদান করে। কিন্তু তারা মাত্র ৫০ হাজার টাকার মধ্যে দায়সাড়া কাজ করে বাকী টাকা হজম করে সরকারের সাথে প্রতারনা করেছে। বিদ্যালয়ের দাতা সদস্য আইবুল ইসলাম ইসলাম বলেন, আমরা জমি দান করে স্কুল প্রতিষ্ঠা করেছি কোন বাটপারকে টাকা খাওয়ার জন্য নয়। অভিভাবক সদস্য মিজানুর রহমান ও জহুরুল ইসলাম জানান, আমাদের সন্তান এই স্কুলে পড়া লেখা করে সামান্য কাজ করে টাকা আতœসাতের বিষয়টি আমরা মেনে নিতে পারছি না। বিদ্যালয়ের সভাপতি মতিউর রহমান রুবেলের কাছে তথ্য জানতে চাললে তিনি জানান, আপনার যা খুশি তাই লিখেন, আমার কাছে তথ্য চাইলে তথ্য অধিকার আইনের মাধ্যমে আসতে হবে। প্রধান শিক্ষককে একাধীকবার ফোন দিলে তা রিসিভ না করায় তার বক্তব্য জানা যায় নি। এ বিষয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আমির হোসেন জানান, উপজেলা প্রকৌশলী প্রত্যায়ন দেয়ার কারনে আমি বীল পাশ করেছি। অভিযোগের ভিত্তিতে আগামী কাল স্কুল পরিদর্শনে যাবো। তদন্ত করে তা প্রমানিত হলে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *