Latest:
Default Ad Banner

Today: 29 May 2020 - 08:41:26 am

ডিমলায় দুই স্বাস্থ্যকর্মী না থাকায় সেবাবঞ্চিত সাধারণ মানুষ : কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ

Published on Sunday, March 22, 2020 at 4:38 pm 29 Views

ডিমলায় দুই স্বাস্থ্যকর্মী না থাকায় সেবাবঞ্চিত সাধারণ মানুষ : কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধনীলফামারী প্রতিনিধি : স্বাস্থ্যকর্মীদের ছুটি বাতিল করা হলেও দীর্ঘদিন ধরে স্বাস্থ্য সেবায় অনুপস্থিত থাকায় স্বাস্থ্যসেবা বঞ্চিত হচ্ছে সাধারণ মানুষজন বলে খবর পাওয়া গেছে। জানা যায়, নীলফামারীর ডিমলায় দীর্ঘদিন ধরে দুই স্বাস্থ্য কর্মী কর্মস্থলে অনুপস্থিত থাকলেও সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা জানেন না কেন কর্মস্থলে নেই ঐ দুই স্বাস্থ্যকর্মী বলে মন্তব্য করেছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ সারোয়ার আলম। খোঁজখবর নিয়ে জানা গেছে, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আওতাধীন কর্মরত স্বাস্থ্য সহকারী (এইচ.এ) আলিফা বেগম ও কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার (সিএইচসিপি) আরজু হোমায়ারা তনু কর্মস্থল ফাঁকি দিয়ে ছুটিতে না থেকেও দীর্ঘদিন ধরে পালিয়ে থাকায় কর্মস্থলে অনুপস্থিত রয়েছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় এলাকাবাসী। এ কারণে কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ রয়েছে এবং সেবাকার্যক্রম চলছে না, বঞ্চিত হচ্ছে স্বাস্থ্য সেবা গ্রহীতারা। উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নের মুকুলের ডাংগা কমিউনিটি ক্লিনিকে দায়িত্বপ্রাপ্ত স্বাস্থ্যকর্মী আলিফা বেগম ও ডিমলা সদর ইউনিয়নের জয়নাল মেম্বারের বাড়ী কমিউনিটি ক্লিনিকে কর্মরত সিএইচসিপি আরজু হোমায়রা তনু ফৌজদারী মামলার আসামী হওয়ায় ১৫ মার্চ/২০২০ থেকে পলাতক রয়েছে বলে জানিয়েছে স্থানীয়বাসীন্দারা। তারা জানায়, ডিমলা মেডিকেল মোড়স্ত এলাকায় বীরমুক্তিযোদ্ধার পরিবারের স্ত্রী ছেলেসহ মুক্তিযোদ্ধাকে মারধরের অপরাধে ডিমলা থানায় গত ১৪ মার্চ একটি মামলা দায়ের করেন নির্যাতনের শিকার ঐ বীরমুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম সরকার মামলা করেন। মামলাটি গত ১৫ মার্চ রুজ্জু করায় হয় ডিমলা থানায়। যার নম্বর-১২। ডিমলায় দুই স্বাস্থ্যকর্মী না থাকায় সেবাবঞ্চিত সাধারণ মানুষ : কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধউল্লেখিত স্বাস্থ্যকর্মীদ্বয় ৩ ও ৫ নং আসামী হওয়ায় পলাতক রয়েছে। এদিকে এ ঘটনায় উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ সারোয়ার আলম মুঠোফোনে গণমাধ্যম কর্মীদের জানান, ফৌজদারী মামলা হলে আমি কোর্ট থেকে নিদের্শনা পাব। সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এতদিন স্বাস্থ্যকর্মীরা ছুটিতে আছেন কিনা প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, তাদের নামে মামলা হয়েছে বিষয়টি আমাকে জানাননি তারা। ছুটিতে আছে কিনা বিষয়টি দেখতে হবে। না থাকলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মামলা সূত্রে জানা যায়, ১৪ মার্চ’২০ সকালে বীরমুক্তিযোদ্ধার সন্তান সোহেল রানা মাসুদ সিএইচসিপি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মাসিক মিটিং এর উদ্দেশ্যে মেডিকেল মোড় বাসা হইতে মেডিকেলে হেটে যাওয়ার পথে পুষ্প রানীর চায়ের দোকানের সামনে পূর্ব পরিকল্পনা মাফিক ওৎ পেতে থাকা পাউবো’র কার্যসহকারী মাহমুদুল হাসান মামুন, তার পিতা আবুল কাশেম কালু, তার স্ত্রী সিএইচসিপি আরজু হোমায়ারা তনু, মা মায়া বেগম তার বড় শালিকা স্বাস্থ্য সহকারী আলিফা বেগমকে সাথে নিয়ে অর্তকিতভাবে সোহেল রানার উপর হামলা চালায়। তারা বীরমুক্তিযোদ্ধার সন্তান মাসুদকে উপর্যুপরি মারতে থাকলে মাসুদের মা ও বাবা বীরমুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম ছুটে আসেন। ঘটনার এক পর্যায়ে মামুন ও তার পরিবারের লোকজন আরো বেশী ক্ষিপ্ত হয়ে মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী মরজিনা বেগম ও মুক্তিযোদ্ধাকে এলোপাথারি মারতে থাকে। এ ঘটনায় পঞ্চগড় পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)’র কার্য সহকারী মাহমুদুল হাসান মামুনকে প্রধান আসামি করে বীরমুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম সরকার বাদী থানায় একটি মামলা করেন।

 

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *